মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসার বেতন কত টাকা এবং ফ্যাক্টরি ভিসার জন্য আবেদন করার নিয়ম অনেকেই জানেন না। এনআইডি চেক ওয়েবসাইটের আজকের এই পোস্টে আপনাদের সাথে মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসার জন্য আবেদন করার নিয়ম এবং অন্যান্য বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো।

আপনি যদি মালয়েশিয়া কোন ভিসা ভালো এই প্রশ্নটি কাউকে জিজ্ঞাসা করেন, তাহলে অবশ্যই উত্তর হবে ফ্যাক্টরি ভিসা। তাই, এই পোস্টে আপনাদের সাথে ফ্যাক্টরি ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য শেয়ার করবো। চলুন, শুরু করা যাক।

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা

বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে মালয়েশিয়া শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে থাকে। আমাদের দেশের অনেকেই মালয়েশিয়া গিয়ে থাকেন কাজ করে টাকা ইনকাম করার জন্য। যারা বিভিন্ন কোম্পানির ফ্যাক্টরিতে কাজ করার জন্য মালয়েশিয়া গিয়ে থাকেন, তারা সাধারণত যে ভিসায় মালয়েশিয়া যান, সেটির নাম হচ্ছে Malyesia Factory Visa ।

অর্থাৎ, যারা মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরিতে কাজ করার জন্য গিয়ে থাকেন, তাদের উক্ত ভিসার নাম হচ্ছে মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা। ফ্যাক্টরি ভিসা কি তা তো জানা হলো। এখন চলুন, মালয়েশিয়ার ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন কত জেনে নেয়া যাক।

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন কত

ফ্যাক্টরি ভিসা
ফ্যাক্টরি ভিসা

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন সাধারণত ৪০ হাজার টাকা থেকে ৪৫ হাজার টাকা অব্দি হয়ে থাকে। আপনার যদি দক্ষতা না থাকে, তবু আপনি ফ্যাক্টরি ভিসায় গিয়ে ৪০ হাজার টাকার বেশি ইনকাম করতে পারবেন। এছাড়া, আপনার যদি পূর্ব অভিজ্ঞতা থাকে, তবে এর থেকেও বেশি বেতনে কাজ করতে পারবেন।

যাদের দক্ষতা আছে, তারা মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসায় গিয়ে ৪০ হাজার টাকার বেশি বেতনে কাজ করে থাকেন। এছাড়াও, থাকা এবং খাওয়ার খরচ তো কোম্পানি দিচ্ছেই। আপনার ব্যক্তিগত খরচ ছাড়া পুরো টাকা আপনি জমা করতে পারবেন।

আরও পড়ুন - মালয়েশিয়া কোন ভিসা ভালো জেনে নিন

এছাড়াও, আপনি মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরিতে কাজ করার পাশাপাশি পার্ট টাইম অন্য কাজ করেও টাকা ইনকাম করতে পারবেন। ফ্যাক্টরি ভিসায় যাওয়া সবথেকে ভালো, কারণ অভিজ্ঞতা না থাকলেও এই কাজে ভালো বেতন পাওয়া যায়। এরপর, অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা বৃদ্ধি পেলে ধীরে ধীরে বেতনও বৃদ্ধি পায়।

ফ্যাক্টরি ভিসায় মালয়েশিয়া যাওয়ার নিয়ম

ফ্যাক্টরি ভিসায় মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য সরকারী বা বেসরকারি কোনো এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করতে হবে। এরপর, তাদের থেকে মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরির ভিসার জন্য আবেদন করতে কী কী লাগে জেনে নিতে হবে।

অতঃপর, ফ্যাক্টরি ভিসার জন্য আবেদন করে আপনি ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়া চলে যেতে পারবেন। ফ্যাক্টরি ভিসার জন্য কীভাবে আবেদন করতে হয় তা নিচে উল্লেখ করে দিয়েছি। চলুন, জেনে নেয়া যাক।

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসায় আবেদনের নিয়ম

মালয়েশিয়ার ফ্যাক্টরি ভিসার জন্য আবেদন করতে আপনাকে কিছু ধাপ অনুসরণ করতে হবে। আমরা সাধারণত যেভাবে ভিসা আবেদন করি, সেভাবে করেই ফ্যাক্টরি ভিসার জন্য আবেদন করতে হয়। ফ্যাক্টরি ভিসার জন্য কীভাবে আবেদন করতে হয় জানার জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

ধাপ ১ – বিএমইটি রেজিস্ট্রেশন

ভিসা আবেদন করার জন্য আপনাকে প্রথমেই বিএমইটি রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। বিএমইটি রেজিস্ট্রেশন করার জন্য BMET ওয়েবসাইট ভিজিট করতে হবে। এজন্য, আমি প্রবাসী অ্যাপ ইন্সটল করে BMET রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

আরও পড়ুন - আমি প্রবাসী সার্টিফিকেট সংগ্রহ করার পদ্ধতি

ধাপ ২ – BMET Training এ অংশগ্রহণ করা

বিএমইটি রেজিস্ট্রেশন করার পর আপনাকে ৩ দিনের একটি ট্রেইনিং এ অংশগ্রহণ করতে হবে। এতে করে, আপনি বিএমইটি থেকে একটি সার্টিফিকেট নিতে পারবেন এবং বিএমইটি থেকে ভিসা আবেদন করা ও রেজিস্ট্রেশন করার কারণে পরবর্তীতে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা নিতে পারবেন সহজেই। এসবের মাঝে একটি হচ্ছে – পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে পাসপোর্ট চেক করা।

ধাপ ৩ – ভিসা এজেন্সির সাথে যোগাযোগ

ফ্যাক্টরি ভিসা নেয়ার জন্য আপনি বেসরকারি ভিসা এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। কিন্তু, এতে করে সরকারী ভাবে যেতে যে পরিমাণ টাকা খরচ হবে, তার থেকে একটু বেশি খরচ হবে। ভিসা এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করে আবেদন করতে হবে।

ভিসা আবেদন করার পর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে। তাহলে, তারা আপনার ফ্যাক্টরি ভিসাটি তৈরি করে দিবেন। অতঃপর, আপনি ফ্যাক্টরি ভিসায় মালয়েশিয়া যেতে পারবেন।

আরও পড়ুন - পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে মেডিকেল রিপোর্ট চেক করার উপায়

এই পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করে সহজেই এবং কম সময়ে Factory Visa এর জন্য আবেদন করে ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়া চলে যেতে পারবেন।

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসার দাম কত

ফ্যাক্টরি ভিসার দাম সাধারণত ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ৩ লক্ষ টাকা অব্দি হয়ে থাকে। সরকারীভাবে বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়া গেলে ভিসার দাম অনেক কম পড়বে। কিন্তু, আপনি যদি মালয়েশিয়া বেসরকারি এজেন্সির সহযোগিতায় যান, তবে টাকার পরিমাণ কিছুটা বেশি লাগবে।

ভালো কোনো এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করে আপনি আরও কম খরচেও মালয়েশিয়া যেতে পারবেন। তাই, ভিসা করার আগে এজেন্সি সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিবেন।

FAQ

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসার দাম কত?

ফ্যাক্টরি ভিসার দাম ২,৫০,০০০ টাকা থেকে শুরু করে ৩,০০,০০০ টাকা অব্দি হতে পারে। ভালো এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করে ভিসা আবেদন করলে, আরও কম টাকায় মালয়েশিয়া যাওয়া সম্ভব।

ফ্যাক্টরি ভিসায় বেতন কত টাকা?

ফ্যাক্টরি ভিসায় মালয়েশিয়া গেলে অভিজ্ঞতা ছাড়াও ৪০ হাজার টাকার বেশি ইনকাম করতে পারবেন প্রতি মাসে। অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা হয়ে গেলে এর থেকে বেশি পরিমাণে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

এই পোস্টে আপনাদের সাথে Malaysia Factory Visa আবেদন করার নিয়ম এবং বেতন কত এসব বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছি। আশা করছি, পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়েছেন। আরও এমন ভিসা বিষয়ক তথ্য পেতে নিচের পোস্টগুলো পড়তে পারেন।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *